১। উদ্যোক্তা তৈরি করা :

এসোসিয়েশন এর  মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে প্রতিটি গ্রামে অন্তত ১ জন করে উদ্যোক্তা তৈরি করা অর্থাৎ ৮৭,৩১৬ টি  গ্রামে ৮৭,৩১৬ জন উদ্যোক্তা তৈরি করা। ১ জন উদ্যোক্তা যদি গড়ে ৪ জনের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে তাহলে ৪ লক্ষ ৩৬ হাজার ৫৮০ জন লোকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে।

৩। ব্যবসা সফল খাতে বিনিয়োগ নিশ্চিত করা :

এসোসিয়েশনের সদস্যদের ব্যবসা মসৃণভাবে পরিচালনা করার জন্য সাহায্য করা এবং উপযুক্ত বিনিয়োগের জন্য সংশ্লিষ্ট সরকারী সংস্থা সমূহকে নীতিমালা/নির্দেশিকা প্রণয়নে পরামর্শ প্রদান করা।

৫। আর্থিক সহায়তা :

এসোসিয়েশনের সদস্যদের অধিকার, চাহিদা, ক্ষয়-ক্ষতির ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহন করা এবং ব্যবসা অথবা সেবা সম্পর্কিত মান-উন্নয়নের লক্ষ্যে যাতে সদস্যগণ কোন ব্যাংক বা বাংলাদেশের কোন আর্থিক প্রতিষ্ঠান হতে সমতার ভিত্তিতে ইইএফ, এসএমই, পিপিপি, গ্রীনব্যাংকিং, সিএসআর, এনআরবি, বিদেশী বিনিয়োগ, শেয়ার, বন্ড, ইক্যুইটি ও অন্যান্য বিনিয়োগ সংক্রান্ত সহায়তা সুষ্ঠভাবে পেতে পারে সেজন্য প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখা।

৭। ব্যবসা সংক্রান্ত সকল বাধা দূর করা :

এসোসিয়েশনের কোন সদস্য ব্যবসা সংক্রান্ত কোন ধরনের বাধা প্রাপ্ত হলে, তা দূরীকরণের জন্য যাবতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

৯। প্রবাসী বাংলাদেশীদের বিনিয়োগে উৎসাহিত করা :

প্রবাসী বাংলাদেশীদের দেশে বিনিয়োগে উৎসাহিত করা। এ লক্ষ্যে সরকারের সাথে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রবাসীদের সুযোগ সুবিধা দেয়ার ব্যাপারে প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখা।

১১। বিশ্বব্যাপী যোগাযোগ রাখা :

এসোসিয়েশনের কর্মকান্ডকে বিস্তৃত করণ এবং যে কোন অধিকার সুরক্ষার জন্য দেশে এবং বিদেশে বিভিন্ন সংস্থার সাথে এসোসিয়েশন যোগাযোগ রক্ষা করা। আন্তর্জাতিক সংস্থাসমূহ থেকে সুযোগ সুবিধা গ্রহণ, এসোসিয়েশন তার নিজস্ব স্বার্থে দেশ এবং বিদেশে কোন সংস্থার সদস্যপদ গ্রহণ করতে সচেষ্ট থাকা। এসোসিয়েশন তার সদস্যদের স্বার্থে জাতীয়, আন্তর্জাতিক, সরকারী বা বেসরকারী যে কোন প্রতিষ্ঠান থেকে প্রশিক্ষণমূলক, নির্দেশনামূলক, প্রযুক্তিগত ও আর্থিক সহায়তা গ্রহণ করার প্রচেষ্টা।

১৩। সরকারের বিভিন্ন কমিটিতে অংশগ্রহণ :

উদ্যোক্তা এসোসিয়েশনের প্রতিনিধিগণ বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন টেকনিক্যাল কমিটি, রিভিউ কমিটি, অনুমোদন কমিটি অথবা অন্য যে কোন কমিটিতে অংশগ্রহণ করে উদ্যোক্তাদের সমস্যাসমূহের সমাধান সরকারের নীতি নির্ধারকদের কাছে তুলে ধরা।

১৫। সমবন্টন করা :

এসোসিয়েশন তার সদস্যবৃন্দের যাবতীয় সুযোগ-সুবিধা সমানভাবে বন্টন করা।

২। প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা :

এসোসিয়েশনের অভিজ্ঞ সদস্যগণ দ্বারা অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে দক্ষ উদ্যোক্তা গড়ার লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মশালার প্রশিক্ষণ-এর আয়োজন করা, বিভিন্ন সমস্যার সমাধান খুঁজে বের করা। এসোসিয়েশনের সদস্যদেরকে উপযুক্ত ও দক্ষ কর্মী প্রাপ্তিতে সহায়তা করা। প্রয়োজনে দক্ষ জনবল তৈরীর মাধ্যমে কর্মী প্রাপ্তিতে সহায়তা করা।

৪। সমন্বয় সাধন করে উদ্যোক্তা তৈরি করা :

সাধারণত একজন উদ্যোক্তার উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা না’ও থাকতে পারে। যেমন কারো মূলধন আছে, কারো জমি আছে, কারো প্রযুক্তি বা কৌশল জানা আছে, কারো আছে পণ্য বাজারজাত করার দক্ষতা। এই সবগুলোকে একত্রিত করে একটি সুন্দর ও সফল ব্যবসাকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব। এসোসিয়েশন এভাবে সমন্বয় সাধন করে উদ্যোক্তা তৈরি করার প্রচেষ্টা।

৬। আইন সিদ্ধ সহায়তা প্রদান করা :

এসোসিয়েশনের কোন সদস্যের উপর যদি প্রাতিষ্ঠানিকভাবে কোন অনুপযোগী আইন বা ব্যবস্থা/সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেওয়া হয় তাহলে উক্ত সদস্যকে এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ, সুরক্ষা ও আইনি সহায়তা প্রদান করা।

৮। সকল শ্রেণীর মানুষকে বিনিয়োগে উৎসাহিত করা :

উদ্যোক্তা ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে সদ্য পাশকৃত শিক্ষিত যুবক ও বেকার যুবকদের নিয়ে আলোচনা করে তাদের বিনিয়োগে আগ্রহী করে তুলে প্রয়োজনে প্রশিক্ষণ, পরামর্শ ও সহযোগিতা করে বিনিয়োগে উৎসাহিত করা।

১০। বিদেশীদের বিনিয়োগে উৎসাহিত করা :

বিশ্বের বিভিন্ন মানুষ/প্রতিষ্ঠানকে আমাদের দেশে বিনিয়োগকারী হিসেবে বিনিয়োগে উৎসাহিত করা এবং যতদূর  সম্ভব তাদের নিরাপদ বিনিয়োগে সাহায্য করা।

১২। আন্তর্জাতিক সংস্থাসমূহ থেকে সুযোগ সুবিধা গ্রহণ :

এসোসিয়েশন তার নিজের স্বার্থে দেশের এবং বিদেশের যে কোন সংস্থার সদস্যপদ গ্রহণ করতে সচেষ্ট থাকা। এসোসিয়েশন তার সদস্যদের স্বার্থে জাতীয়, আন্তর্জাতিক, সরকারী বা বেসরকারী যে কোন প্রতিষ্ঠান থেকে প্রশিক্ষণমূলক, নির্দেশনামূলক, প্রযুক্তিগত ও আর্থিক সহায়তা গ্রহণ করার প্রচেষ্টা।

১৪। সরকারের সাথে কাজ করা :

এসোসিয়েশনের সদস্য যারা ব্যাংক অথবা আর্থিক প্রতিষ্ঠান হতে ইতোমধ্যে সহায়তা পেয়েছেন বা পেতে যাচ্ছেন তারা সরকারের নীতিমালা সঠিক ভাবে পালন করছেন কি না তা পর্যবেক্ষণে সরকারকে সহযোগিতা করা।

১৬। কর্ম প্রক্রিয়াকে ডিজিটালাইজড করণ :

শুধুমাত্র এসোসিয়েশনের সদস্যরাই যেকোন সাহায্যের জন্য আবেদন করতে পারবেন। অনলাইনের মাধ্যমেও সদস্যপদ দেওয়া হবে। এসোসিয়েশনের নিজস্ব ওয়েবসাইটে সংশ্লিষ্ট ফরম ও ডকুমেন্ট, হালনাগাদ তথ্য, সংবাদ, প্রশিক্ষণ, সেমিনার এবং মিটিং-এর তথ্য, হিসাব সংক্রান্ত তথ্য, জ্ঞানের আদান-প্রদান, গ্রপ ইমেইল, মেম্বার ডিরেক্টরী এবং এরূপ আরো অনেক বিষয় যতদূর সম্ভব প্রযুক্তির মাধ্যমে উপস্থাপন করা হবে। এসোসিয়েশনের নির্বাহী কমিটির ব্যানারে প্রত্যেকের ইমেইল আই.ডি থাকবে। সদস্যগণ অনলাইনে সরাসরি একে অন্যের সাথে আলাপ আলোচনা করে ব্যবসা সংক্রান্ত বিভিন্ন ধরনের সমস্যার সমাধান করার সুযোগ।